অ্যাণ্ড্রয়েড ফোনের জন্য চালু হচ্ছে প্যানিক বটন সহ আই ফীল সেফTM


  • অ্যাণ্ড্রয়েড ফোনের জন্য এবং শীঘ্রই সমস্ত ফিচার ফোনের জন্যও চালু হচ্ছে প্যানিক বটন সহ আই ফীল সেফ TM.
  • সাধারণ মানুষদের নিরাপত্তা প্রদান করার জন্য মোবাইল ফোন প্রস্তুতকর্তাদের বেশী পরিমাণ টাকা খরচ করতে হবে না
  • সম্প্রতি সরকারের পরামর্শে প্যানিক বোতামের প্রয়োজনীয়তা হল একটি অভিনন্দিত পদক্ষেপ
  • ফোন যখন বন্ধ থাকে তখনও এটি কাজ করে

নিউ দিল্লী , ভারত -৫ই মে, ২০১৬ – মোবাইল ডিভাইসের জন্য আদর্শ সমাধানের উন্নতিবিধানে কর্মরত, একটি অগ্রগণ্য টেলিকমিউনিকেশন সলিউশন এবং সার্ভিস প্রদানকারী সংস্থা, এমএসএআই, সমস্ত অ্যাণ্ড্রয়েড মোবাইল ফোনে এবং শীঘ্রই সমস্ত ফীচার ফোনের জন্য আজ আই ফীল সেফ TM  প্যানিক বটন চালু করার কথা ঘোষণা করেছে। আই ফীল সেফTM প্যানিক বটন হল মোবাইল ফোনের হার্ডওয়্যারের সাথে অ্যাণ্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশনের একত্রীকরণের একটি বৈপ্লবিক ধারণা- এই প্যানিক বটনটি ভারতে কোনো মহিলা, শিশু এবং বিপদগ্রস্ত কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে হওয়া অপরাধ কম করতে অবিলম্বে সরকারের দৃষ্টিভঙ্গীকে পরিপূর্ণ করে। সরকার সম্প্রতি ঘোষণা করেছে যে ২০১৭ সালের ১লা জানুয়ারী থেকে প্যানিক বটন বাধ্যতামূলক হবে।

আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে সতর্ক করার জন্য আপনার মোবাইল ফোনে প্যানিক বটন ব্যবহার করতে ব্যবহারকারীদের ২০১৭ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এখন আপনি আই ফীল সেফ TM অ্যাপ্লিকেশনটি সক্রিয় করতে আপনার যে কোনো অ্যাণ্ড্রয়েড ফোনে ৫ বার অনবরত আপনার পাওয়ার বটনটি টিপতে পারেন। এমন কি এই সতর্কতা বার্তা পাঠানোর জন্য আপনাকে আপনার অ্যাণ্ড্রেয়ড স্মার্ট ফোনের লকও খুলতে হবে না। প্যানিক বটনটি টিপে একবার সক্রিয় হয়ে গেলে, অ্যাপ্লিকেশনটি এসএমএস-এর মাধ্যমে আপনার প্রিয়জনেদের কাছে আপনার অবস্থানের বিষয়ে স্থাননির্দেশ করে দ্রুত আপনার বিপদের বিষয়ে খবর পাঠিয়ে দেবে এবং এছাড়াও এটি পুলিশের কাছেও আপনার বিপদ সংকেত জানিয়ে কল করবে। এছাড়াও এটি প্রতি এক মিনিটে স্পষ্ট করে দ্রাঘিমাংশ এবং অক্ষাংশের স্থানাঙ্ক সহ মানচিত্র দেওয়া শুরু করবে যেটা অপরাধ স্থলের রাস্তার সঠিক সচল মানচিত্র দিতে পালাক্রমে গন্তব্যস্থলটির বিষয়ে জানাতে থাকতে পারে। এই প্রগতিশীল অ্যাপ্লিকেশনটি ক্রমাগত বিপদ সংকেত দিয়ে যেতে থাকবে যতক্ষণ পর্যন্ত ব্যবহারকারী সেটা বন্ধ না করবেন।

‘‘এই মহিলাদের নিরাপত্তা মাত্র একটা বোতাম দূরত্বে’ হল বিপদগ্রস্ত অবস্থায় একজন ব্যক্তির দুর্দশায় একটি সংযুক্ত ডিজিটাল প্রতিক্রিয়া। বিচক্ষণতার সাথে মহিলাদের বিরুদ্ধে অপরাধের, সন্ত্রাসের হুমকি, অপহরণের বিরুদ্ধে লড়াই  করতে, আজকের সংযুক্ত জীবনে মোবাইল ফোন যথাযোগ্যভাবে সবচেয়ে মূল্যবান উপকরণ ব্যবহার করছে,’’ বলেছেন এমএসএআই-এর প্রধান,ভাবনা কুমারী

আই ফীল সেফ TM সম্ভাব্য ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য হাতের নাগালের মধ্যে আসে। যদি তারা কোনো বিপদের সম্ভাবনা অনুভব করেন, তাহলে তাদের অ্যাণ্ড্রয়েড ফোনে একাধিক বার অনবরত পাওয়ার বটনটি টিপলে সেটা আইন প্রয়োগকারী অফিসারদের কাছে এমন কি তার প্রিয়জনেদের কাছেও নীরব বিপদসংকেত হিসাবে পৌঁছে যাবে, যেটা সঠিক দ্রাঘিমাংশ এবং অক্ষাংশের স্থানাঙ্ক সহ সংকেত দেওয়া শুরু করবে যা অপরাধ এড়াতে সাহায্য করতে পারে, যদি অপরাধ স্থলে সঠিক সময়ে সাহায্য পৌঁছায় তাহলে।

এই বিজোড় সমন্বয় প্রচেষ্টা পুলিশদের সবচেয়ে ভয়ানক প্রয়োজনে ভারতীয় নাগরিকদের সুরক্ষিত রাখবার আরো কার্যকরী পদ্ধতি তৈরী করতে সাহায্য করে।

এছাড়াও এই প্যানিক বটনটি পুলিশদেরকে জরুরী যোগাযোগকারী ব্যক্তিদের বিষয়েও জানতে সাহায্য করবে যাতে সেই বিপদগ্রস্ত ব্যক্তির বিষয়ে খবরাখবর জানবার জন্য এবং সেই সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে উদ্ভূত জরুরী প্রয়োজনে সঠিকভাবে  দ্রুত গতিতে তাদের পেতে পুলিশ তাদের সাথে অবিলম্বে যোগাযোগ করতে পারে। সাধারণতঃ যদি এক ঘন্টার মধ্যে পুলিশ তাদের যত দ্রুত গতিতে সম্ভব পেতে পারে, তাহলে বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে অপরাধ এড়ানোর সাফল্যের হার খুব বেশী থাকে।

ভাবনা আরো বলেছেন যে,‘‘২০১৪ সালের ১৬ই ডিসেম্বরে নির্ভয়ার ঘটনা ঘটবার দুদিন পরে যখন আমার মেয়ে অমূল্যার জন্ম হয়, আমি তখনই মহিলাদের নিরাপত্তার জন্য কিছু করবার বিষয়ে ব্যক্তিগতভাবে একটি সচেতন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। একদিকে আমি নির্ভয়ার পরিস্থিতি নিয়ে অনুশোচনা করছিলাম যা সারা দেশকে আচ্ছন্ন করেছিল, অন্যদিকে আমি আমাদের পরিবারে  এক গুচ্ছ আনন্দকে স্বাগত জানিয়েছিলাম। অমূল্যার জ্বলজ্বলে চোখের দিকে তাকিয়ে আমি শক্তি লাভ করেছিলাম, আর তখন আমি মহিলাদের নিরাপত্তায় কোনো পরিবর্তন আনবার শপথ নিয়েছিলাম’’  

নিরাপত্তা এবং অগ্রগতিশীল প্রযুক্তি হল এই চির বর্ধমান মোবাইল শিল্পের একটি মুখ্য অংশ, যা এই গর্বিত দেশের সংযুক্ত লক্ষ লক্ষ নাগরিকদের সবথেকে বড় অংশদাতা।

# # #

এমএসএআই  সম্বন্ধে

এমএসএআই হল একটি  অগ্রগণ্য টেলিকমিউনিকেশন সলিউশন এবং সার্ভিস প্রদানকারী সংস্থা, যারা মোবাইল ডিভাইসের জন্য আদর্শ সমাধানের উন্নতিবিধানে কর্মরত। বিশ্ব ব্যাপী একটি ব্যাপক পরিধির মোবাইল ব্র্যাণ্ড এবং প্রস্তুতকর্তারা এমএসএআই পরিষেবা গ্রহণ করেন।

এমএসএআই আইএসও ৯০০১ কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম এবং আইএসও/আইএসি ২৭০০১ ইনফরমেশন সিকিউরিটি ম্যানেজমেন্ট দ্বারা স্বীকৃত। এছাড়াও এমএসএআই আইএমইআই ভিত্তিক মোবাইল সফ্টওয়্যার পরিষেবার উন্নয়ন, বিতরণ এবং একীভূতকরণে বিশেষজ্ঞ। এমএসএআই সরকারের জন্য, ডিভাইস ম্যানেজমেন্ট(ডিএম)কোম্পানী, নেটওয়ার্ক অপারেটর, ব্র্যাণ্ড ওনার এবং গ্রাহকদের জন্য কাস্টম মেড সলিউশন তৈরী করেছে।

এমএসএআই-এর ১০০ জনেরও বেশী দলীয় সদস্যরা চীন, ইউএসএ-র মোবাইল ইকোসিস্টেম যুক্ত অফিসে স্টেট অফ দি আর্ট, বলিষ্ঠ, পরিমাপযোগ্য সমাধান প্রদান করতে সমর্পিত। এমএসএআই-এর কেন্দ্রীয় দফতরগুলো ভারতের নিউ দিল্লীর বাইরে অবস্থিত। আরো বিস্তারিত তথ্যের জন্য, অনুগ্রহ করে ভিজিট করুন www.msai.in

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: